রাবিপ্রবিতে চান্স পেয়েও টাকার অভাবে ভর্তি হতে পারছেনা সোনাগাজীর গিয়াস উদ্দিন

বাবা বাঁশ-বেতের কাজ করেন। বড় ভাই ফার্ণিচারের কাজ শিখছেন। এবার রাঙ্গামাটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবিপ্রবি) ভর্তি পরীক্ষায় অসামান্য সাফল্য লাভ করে সবাইকে তাক লাগিয়ে দিয়েছে গিয়াস উদ্দিন। তার গ্রামের সোনাগাজী উপজেলার মতিগঞ্জ ইউনিয়নের পালগিরি গ্রামে।
জানা গেছে, তিন ভাইয়ের মধ্যে মেঝ গিয়াস উদ্দিন। মঙ্গলকান্দি বহুমুখি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ২০১৭ সালে এসএসসি ও সোনাগাজী সরকারি কলেজ থেকে ২০১৯ সালে এইচএসসিতে কৃতিত্বের সঙ্গে উত্তীর্ণ হয় সে। দারিদ্র্য কোনভাবেই থামাতে পারেনি তার অদম্য ইচ্ছা ও তার মেধাশক্তিকে। তবে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে কৃতিত্বের সঙ্গে ভর্তির সুযোগ পেয়েও এখন তার স্বপ্ন দারিদ্র্যের অভিশাপে পড়েছে। ৬ ডিসেম্বর ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে ৩২ আসনের মধ্যে মেধা তালিকায় নবম স্থান অর্জন করেছে গিয়াস উদ্দিন।

গিয়াস উদ্দিন জানায়, জায়গা-জমি বলতে বাড়ির ভিটেমাটি ছাড়া কিছু নেই। বাবার বাঁশ-বেত নিয়ে কাজ করাই আয়ের একমাত্র উৎস। বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার স্বপ্ন ছেলেবেলা থেকেই। এখন চান্স পেয়েও ভর্তি হওয়া নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েছে। শেষ পর্যন্ত মেডিকেলে ভর্তিসহ লেখাপড়া চালিয়ে যেতে পারবো কী না তা নিয়ে সংশয়ে পড়েছি।

আরো জানায়, দারিদ্র্য-পীড়িত হওয়ায় বাবার রোজগার দিয়ে সংসার চালাতে হোঁচট খেতে হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ পাওয়ার পর ভর্তি ও লেখাপড়ার খরচ যোগান নিয়ে বাবা-মা দুশ্চিন্তায়। আগামী ১৩ থেকে ১৭ জানুয়ারি ভর্তির দিন ধার্য্য রয়েছে। এতে প্রায় ১৭হাজার টাকার প্রয়োজন কিন্তু বাড়িতে এক হাজার টাকাও নেই। এলাকার বড় ভাই ও বিত্তবানদের সহযোগিতা কামনা করেছেন।