দাগনভূঞায় মোহাম্মদ আলমগীর ননীর সাংবাদিকতা ও আত্মজীবনী

সাংবাদিক আলমগীর ফরাজী প্রকাশ আলমগীর ননী। আবদুল লতিফ ফরাজী ও ফয়জুন নেসা ছেলে আলমগীর ননী।তিনি নোয়াখালীর জেলায় সেনবাগ থানার বিজবাগ এর ফরাজী বাড়ীর সন্তান এবং সেখানেই তার বেড়ে ওঠা। বর্তমানে তিনি ধর্মপুর গ্রাম বেকের বাজার, দাগনভাঞা,ফেনী বসবাস করেন।

তিনি ১৯৯৮ সালে দাগনভূঞা ইকবাল মেমোরিয়াল কলেজ থেকে এইচ এস সি এবং ২০০০ সালে ফেনী কলেজ থেকে ডিগ্রী পাস করার পর সাংবাদিকতায় পেশায় পদার্পন করেন। পদার্পণ এর পর থেকে তিনি কাজ করেছিলেন নোয়াখালী থেকে প্রকাশিত সাপ্তাহিক নোয়াখালী কন্ঠ,নোয়াখালী মেঈল,আজকের যোগাযোগ,দৈনিক নোয়াখালী প্রতিদিন,দৈনিক প্রতিদিন আমার সংবাদ। ফেনী থেকে প্রকাশিত -সাপ্তাহিক ফেনী প্রবাহ,সাপ্তাহিক জহুর,সাপ্তাহিক নবকিরন,দৈনিক ফেনী প্রতিদিন, দৈনিক স্টার লাইন। জাতীয় দৈনিক বাংলাদেশ সময়,দৈনিক আমার দেশ,দৈনিক আলোকিত বাংলাদেশ ,দৈনিক আমাদের অর্থনীতি, বর্তমানে দৈনিক যায়যায়দিন এবং ইংরেজী দৈনিক আওয়ার টাইম,নিউ এইজ,ও দৈনিক ঢাকা িট্রবিউনে দাগনভূঞা প্রতিনিধি হিসাবে কর্মরত রয়েছেন।

২০১১ সালে নির্বাচনের মাধ্যমে দাগনভূঞা প্রেস ক্লাবের সেক্রেটারী নির্বাচিত হয়ে সফলভাবে দায়িত্ব পালন করেন। ২০১৪ সালে প্রেস ক্লাবের সহ সভাপতি ২০১৮ সালে পুনরায় সেক্রেটারী নির্বাচিত হন এবং আগামী ২০২২ সালেও দাগনভূঞা প্রেস ক্লাবের সেক্রেটারী হিসাবে নির্ধারন করেছেন প্রেস ক্লাবের সাংবাদিকগন।

এছাড়াও তিনি বাংলাদেশ জার্নালিস্ট ডেভেলপমেন্ট সোসাইটির দাগনভূঞা উপজেলা শাখার সভাপতি পদে দায়িত্ব পালন করছেন গত ৫ বছর ধরে। তার নিজস্ব প্রকাশনায় রয়েছে দৈনিক প্রিয় দেশ এবং সাপ্তাহিক পর্যবেক্ষন( বিশেষ বিশেষ দিবসে প্রকাশ ও আবেদন)।

সাংবাদিক আলমগীর ননী সাদাসিধে জীবনযাপন করতে পছন্দ করেন। তার সাংবাদিকতায় বিভিন্ন সময় ফুটে উঠেছে দাগনভূঞা উপজেলা এবং নোয়াখালীর প্রত্যন্ত অঞ্চলের জনদুর্ভোগ। তিনি তার পেশাগত দায়িত্বশীলতায় ইতিমধ্যে জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন।

টাইমস অব ফেনীর (অনলাইন নিউজ পোর্টাল) ১ লক্ষ ৫০ হাজার ভিউয়ার্স হওয়ায় টাইমস অফ ফেনীর প্রকাশক জহিরুল ইসলাম বাহাদুর এবং সম্পাদক মোহাম্মদ হোসেন কে ধন্যবাদ প্রদান করেন এবং সাথে সাথে এর উত্তরোত্তর সাফল্য কামনা করেন।

ফেনী জেলায় টাইমস অব ফেনী নিউজ পোর্টালটি ইতিমধ্যে জনপ্রিয়তা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে।