এই মহামারিতে যাদের দিকে তাকিয়ে আছে দাগনভূঞা উপজেলার মানুষ

মোহাম্মদ হোসেনঃ- মানব সেবাই পরম ধর্ম। পৃথিবীর প্রতিটি ধর্মেই মানব সেবার কথা বলা হয়েছে। মানব সেবার মাধ্যমে স্রষ্টাকে পাওয়া যায়। সারা পৃথিবী এখন করোনাভাইরাস (covid-19) এ আক্রান্ত। কখন এই ভাইরাস থেকে মুক্ত হয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরবে তার নিশ্চয়তা এখনো নেই।

এমন পরিস্থিতিতে দাগনভূঞা উপজেলায় কর্মহীন শ্রমজীবী, দরিদ্র, মধ্যবিত্ত অনাহার অধ্যাহার মানুষ আপনাদের দিকে চেয়ে আছে। জনগণ প্রত্যাশা করছে সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী দাগনভূঞা উপজেলার কোন মানুষই অনাহারে থাকবে না।

উপজেলাবাসীর সেই প্রত্যাশা পুরন করতে কাজ করে যাচ্ছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার, স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ও উপজেলা ভূমি কর্মকর্তা।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ রবিউল হাসানকে আমরা দেখেছি এসময় মানুষের ঘরে ঘরে গিয়ে খাবার পৌঁছে দিতে, এছাড়াও খোজ খবর নিচ্ছেন এখনো কেউ বাকি আছে কিনা। এছাড়াও যখনই কেউ ফোন করে কোন খবর দিচ্ছেন সাথে সাথে ছুটে গিয়ে ঐ কাজ সমাধান করছেন। ইতিমধ্যে যারা যারা দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে উপজেলায় এসেছে, তাদেরকে কোয়ারেন্টাইনে থাকতে ছুটে গিয়েছেন তাদের বাড়িতে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাঃ রুবায়েত বিন করিম যিনি উপজেলার সকল মানুষকে সচেতন করতে বিভিন্ন সময় লিপলেট দিয়ে মানুষকে সচেতন করার কাজ করেছেন, হাসপাতালের অভ্যন্তরে নিয়েছে বিভিন্ন পদক্ষেপ, এছাড়াও এই কঠিন মুহুর্তে ও জনগনকে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন এবং সকল ডাক্তার যেন সেবা সঠিকভাবে দেয় তা নিশ্চিত করে যাচ্ছেন।

উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মাসুমা জান্নাতকে দেখা গেছে মাঠ পর্যায়ে বিভিন্ন দায়িত্ব পালন করতে। মানুষকে সচেতন করতে এবং যে সকল ব্যবসায়ী বেশী দামে পণ্য বিক্রি করছে তাদের দমন করতে। তিনি উপজেলার বিভিন্ন বাজারে অভিযান পরিচালনা করেন এবং নিত্যপণ্যসমূহ নির্ধারিত দামে বিক্রি করতে আহবান জানান।