দুর্যোগে ৫০০ পোশাককর্মীর চাকরি গেল কেইপিজেডের গার্মেন্টসে

চট্টগ্রাম নগরীর কর্ণফুলী রপ্তানী প্রক্রিয়াজাতকরণ অঞ্চলের (কেইপিজেড) একটি পোশাক কারখানায় প্রায় ৫ শতাধিক শ্রমিককে কৌশলে ছাঁটাইয়ের অভিযোগ উঠেছে। করোনাভাইরাস উদ্ভূত পরিস্থিতিতে মার্চ মাসের বেতন পরিশোধ করে তাদেরকে আর কাজে না আসতে বলে দেওয়া হয়েছে।

প্রধানত মহিলাদের ব্রা-প্যান্টি প্রস্তুতকারক ইনটিমেট এপারেলস লিমিটেড চীনের হংকংভিত্তিক একটি প্রতিষ্ঠান। যার মূল মালিক বিদেশি হলেও বাংলাদেশি একাধিক পরিচালক আছেন বলে জানা গেছে। চট্টগ্রামে কর্ণফুলী ইপিজেডের ৯১-৯৩ প্লটে প্রতিষ্ঠানটির অবস্থান। এছাড়াও চট্টগ্রাম ইপিজেডে তাদের কারখানা রয়েছে।

প্রতিষ্ঠানটির ওয়েবসাইট থেকে জানা যায়, এর গ্রাহকদের মধ্যে রয়েছে বিশ্বখ্যাত বনপ্রিক্স, সিএন্ডএ, এইচএন্ডএম, জেসি পেনি, মার্কস এন্ড স্পেন্সার, ওয়ান্ডার ব্রা, নেক্সটসহ আরও নানা প্রতিষ্ঠান।

চাঁদপুরের কচুয়া উপজেলার রেশমী আক্তার (ছদ্মনাম)। চাকরি করেন সাড়ে ৪ মাস কর্ণফুলী রপ্তানী প্রক্রিয়াজাত করণ অঞ্চলের (কেইপিজেড) ইনটিমেট এপারেলস লিমিটেডে। থাকেন কাটগড় এলাকার মুসলিমাবাদে। করোনাভাইরাস উদ্ভুত পরিস্থিতিতে কারখানা বন্ধ হওয়ার পর ৬ এপ্রিল বেতন তুলেছেন। তারপর ফ্লোর ইনচার্জ বলে দিয়েছেন আপাতত আর কারখানায় আসতে হবে না। করোনার কারণে মালিকের কাজের অর্ডার নেই। যদি আবার কখনও শ্রমিক প্রয়োজন হয় তখন তাকে খবর দেওয়া হবে।

ভোলার জসিম উদ্দিনও বেতন গ্রহণ করার পর একই জবাব পান, করোনায় পরিস্থিতি মন্দা। যদি মালিকের সুদিন ফিরে তাকেও অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। এভাবে স্বপ্ন ভাঙ্গার গল্প শুরু হয়ে সেই ঢেউ লেগেছে লক্ষীপুরের রামগতির সুফিয়া খাতুন, রাঙ্গামাটির আলী হোসেনসহ প্রায় ৫ শতাধিক শ্রমিকের জীবনে। যারা একবুক স্বপ্ন নিয়ে গ্রাম থেকে চট্টগ্রাম শহরে শ্রমের চাকায় জীবন বদলাতে চেয়েছেন।

তাদের দাবি, মার্চ মাসের বেতন দিয়ে তাদেরকে চাকরিচ্যূত করা হয়েছে। চাকরিচ্যূতির বিষয়টি যাতে বাইরে প্রকাশ করা না হয় তার জন্য তাদেরকে আবার চাকরিতে ফিরিয়ে নেওয়ার আশ্বাসও দিয়ে রেখেছে। যা একটি অপকৌশল হিসেবে দেখছেন সিনিয়র শ্রমিকরা।

একই কারখানায় ৫ বছরের বেশি চাকরি করা আবরার হোসেনের সাথে কথা বলে জানা যায়, কোন শ্রমিকের চাকরির মেয়াদ ৬ মাস হলে তাকে স্থায়ী করা হয়। তখন আইন অনুযায়ী শ্রমিকদের কিছু অধিকার প্রতিষ্ঠা হয়ে যায়। তাকে ছাঁটাই করতে হলে ৩ মাস ১৩ দিনের অগ্রিম বেতন দিয়ে ছাঁটাই করতে হয়। যেসব শ্রমিককে কাজে যোগ দিতে নিষেধ করা হয়েছে চলতি মাসে কিংবা আগামী মাসে তাদের চাকরির মেয়াদ ৬ মাস পূর্ণ হতো। এতে ঈদে তারা বোনাস পেতো। এখন চাকরিচ্যূতির ঘটনায় তারা দিশেহারা।

ফাতেমা আক্তার নামের এক শ্রমিক জানান, ‘মা-বোন লই ক্যানে চইল্যুম? প্রধানমন্ত্রী তো মালিক অক্কলরে সহযোগিতার ঘোষণা দিয়্যে। ত ইতারা আঁরারে বিদায় গরি দের।’

শ্রমিক ছাঁটাইয়ের বিষয়ে কথা বলতে ইনটিমেট এপারেলস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মনোহরলাল উত্তমের মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন করে সাড়া পাওয়া যায়নি। ভারতের যোধপুরে জন্ম নেওয়া মনোহরলাল উত্তম মূলত হংকংয়ের বাসিন্দা।

এই অস্থায়ী শ্রমিকদের চাকরিচ্যূতিতে আইনি বাধা না থাকলেও তা অমানবিক এবং ইপিজেডে কোন কারখানা তা করতে পারে না বলে জানান কেইপিজেডের ভারপ্রাপ্ত মহাব্যবস্থাপক মশিউদ্দিন বিন মেজবাহ।

তিনি বলেন, অস্থায়ী শ্রমিকদের চাকরি থেকে ছাঁটাই করতে হলেও কিছু নিয়মকানুন আছে। একসাথে এত শ্রমিক বিদায়ের সুযোগ নেই। দুই একজন যদি কারখানার পরিবেশের সঙ্গে খাপ না খায় কিংবা কাজের মান ভালো না হয় তার ব্যাপারে মালিকপক্ষ সিদ্ধান্ত নিতে পারে। তবে করোনা পরিস্থিতিতে সরকার যেহেতু আমাদের পাশে আছে করোনাকে পুঁজি করে শ্রমিক ছাঁটাইয়ের সুযোগ নেই। কেউ যদি আমাদের অফিসে অভিযোগ করে আমরা বিষয়টি দেখবো। সুত্রঃ চট্টগ্রাম প্রতিদিন।