অন্যান্য

‘৪৮ ঘণ্টায় ৩৫ শিশু নিখোঁজ’, যা বললেন পুলিশ কমিশনার

গত ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে ঢাকাসহ চট্টগ্রামে ৩৫টি বাচ্চা নিখোঁজ। সতর্ক থাকুন।’ এমন খবরে সয়লাব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম (ফেসবুক)। বেশ কয়েকটি বড় বড় ফেসবুক পেজ ও গ্রুপে এমন স্ট্যাটাস ঘুরপাক খাচ্ছে। এসব স্ট্যাটাস সত্য ভেবে অনেকেই আবার শেয়ার দিচ্ছেন নিজের প্রোফাইলে। এতে জনমনে আতঙ্ক ছড়িয়েছে। চিন্তায় রয়েছেন অভিভাবকরা। তবে এটাকে গুজন বলে উড়িয়ে দিলেন চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটনের (সিএমপি) নবনিযুক্ত পুলিশ কমিশনার মো. সাইফুল ইসলাম।

সোমবার (৮ জুলাই) সকালে দামপাড়া পুলিশ লাইনের মাল্টটিপারপাস শেডে সাংবাদিকদের সঙ্গে মিট দ্য প্রেসে তিনি বলেন, ‘প্রেমঘটিত কিংবা পরিবারের ওপর রাগ করে ঘর থেকে বের হয়ে যাওয়ার ঘটনাকে নিখোঁজ বলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচার করা হচ্ছে। পরে আবার তাদের পাওয়াও যাচ্ছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তা গুজব আকারে প্রচার হচ্ছে।’

এ সময় তিনি আরও বলেন, ‘১৭টি ঘটনার পর্যালোচনা করে দেখা যায়, প্রেম গঠিত বিষয়ে ঘর থেকে বের হয়ে যাওয়ার ঘটনা আটটি। পারিবারিক ঘটনায় পাঁচজন। বাকিরা আরও বিভিন্ন কারণে ঘর থেকে বের হয়ে গেছে, আবার ফিরে ও এসেছে। বিভিন্ন পেইজ থেকে এসব প্রচার হওয়ার কারণে মনে হচ্ছে মানুষ নিখোঁজ হয়ে যাচ্ছে। আবার অনেকে ফেসবুকে শেয়ার ও দিচ্ছেন। বাস্তবে এসব নিছকই গুজব বলে জানান পুলিশ কমিশনার।’

সিএমপির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার আব্দুল মান্নান মিয়া বলেন, ‘মূলত চারটি পেইজ ডেসপারেটলি সিকিং চট্টগ্রাম, হেল্প ইন চট্টগ্রাম, অক্সিজেন মোড়, হেল্প লাইন চট্টগ্রাম নামের এসব পেইজ থেকে নিখোঁজ কিংবা হারিয়ে যাওয়ার খবর ছড়ানো হয়। তাদের আমরা ডেকেছিলাম; কথা বলেছি। তারা বলেছে, নিখোঁজের খবর শুনেই তারা তা প্রচার করেছে। যাচাই-বাছাই করেনি। ভবিষ্যতে থানায় জিডি না হওয়া কোনো নিখোঁজের খবর প্রচার করা হবে না বলেও পুলিশকে জানিয়েছেন পেইজের এডমিনরা।’

উল্লেখ্য, সম্প্রতি একের পর এক ‘নিখোঁজ’ সংবাদে সয়লাব ফেসবুক। বিশেষ করে শনিবার (৭ জুলাই) সন্ধ্যায় ভাইরাল হয় একটি পোস্ট। যেখানে বলা হয়, গত ৪৮ ঘণ্টায় ঢাকা ও চট্টগ্রাম থেকে নিখোঁজ হয়েছে ৩৫ শিক্ষার্থী।

মুহূর্তেই ভাইরাল হয়ে যায় পোস্টটি। বিভিন্ন গ্রুপে আসতে শুরু করে একের পর এক নিখোঁজ বিজ্ঞপ্তি। বিভিন্ন গ্রুপ ও পেজ থেকে দেয়া শিশু কিংবা বিভিন্ন বয়সি ছেলে-মেয়ে নিখোঁজের পোস্টগুলো উদ্বেগ সৃষ্টি করে। অনেকেই এসব পোস্ট শেয়ার করেন। এর বেশিরভাগই চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার জেলাকেন্দ্রিক ফেসবুক আইডি থেকে ছড়ানো হয়।