ফেনী

ফেনীতে হিজড়াদের চাঁদাবাজি চরমে, জিম্মি করে চাঁদা আদায়

ফেনীতে হিজড়াদের চাঁদাবাজি চরমে, জিম্মি করে চাঁদা আদায়।

বর্তমানে হিজড়ার অপর নাম আতঙ্ক। হিজড়াদের টাকা তোলা নতুন কিছু নয়। আগে মানুষ যা দিত, তা নিয়েই খুশি থাকত । কিন্তু ইদানীং তাদের আচরণ বদলে গেছে। রাস্তাঘাট, বাসাবাড়ি, দোকানপাট অফিস , যেখানে-সেখানে টাকার জন্য মানুষকে নাজেহাল করছে তারা।

তাদের সঙ্গে তর্ক করলে অফিস স্টাপদের অশ্লীল
ভাষায় ব্যবহার করা, আরও বিব্রতকর পরিস্থিতির মধ্যে পড়তে হয়। গতকাল শনিবার ব্র্যাক ব্যাংক এজেন্ট ব্যাংকিং মোল্লাঘাটা আউটলেট সিসি টিভির ফুটেজ দেখা যায়, হিজড়াদের একটি দল অফিসে ব্যাংক কাস্টমার এর সামনে অশ্লীল ভাষায় গালাগাল দিচ্ছে।

অফিসের আসবাবপত্র ভাংচুরের চেষ্টা চালায় ,তাদের দাবি ৩ হাজার থেকে ২ হাজার টাকা দিতে হবে এটা ঈদ বোনাস। তাদের এ বোনাস না দিলে অফিস বন্ধ করে দেয়ার হুমকি দেয় তারা, এই নিয়ে মারাত্মক নিরাপত্তাহীনতায় থাকছে অফিস স্টাফরা।

প্রতিষ্ঠান এর এজেন্ট জসিম উদ্দিন (ফরায়েজী) বলেন ২০২০ সালে জানুয়ারী মাসে এজেন্ট ব্যাংকিং চালু করি তার পর থেকে করোনায় দেশ স্থবির হয়ে পড়ে, তখন থেকে প্রতি মাসে ২০ হাজার টাকা লস গুনতে হচ্ছে, তার মধ্যে হিজড়াদের প্রতি মাসে চাঁদার টার জন্য অতিষ্ঠ হয়ে গেছি।

আরেকটি কৌশল গ্রামের মানুষের বিয়ে জন্মদিন বিভিন্ন অনুষ্ঠানে গিয়ে বরযাত্রীর সামনেই তাদেরকে জিম্মি করে বড় অংকের চাঁদা দাবী করে ১০-১৫ হাজার টাকা দিতে হবে নাহয় বিয়ে বন্ধ করে দিবে।

হিজড়ারা বলেন পুলিশ ও তাদের কিছুই করতে পারবে না এমন হুমকি দিয়ে মানুষকে জিম্মি করে, সাধারণ মানুষ বলছে এদের যদি এখনই থামানো না হয় তাহলে ভবিষ্যতে আরো চরম আকার ধারণ করবে। ব্যবসায়ীরা বলেন তাদের বিরুদ্ধে কেন ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না? দেশে কি কোনো আইন নেই?।

দাগনভূঞা থানার অফিসার ইনচার্জ মো হাসান ইমাম বলেন, ঈদ আসলে এদের চাহিদার এমাইন্ট বেড়ে যায়, মানুষকে জিম্মি করে টাকা আদায় করবে এমন কোন সংবাদ আমরা পাই তাহলে সাথে সাথে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *