ফেনীতে প্রয়োজন ছাড়া বের হলে শাস্তি, কঠোর অবস্থানে সেনাবাহিনী

‘করোনা যুদ্ধ করবো জয়, ঘরের বাইরে আর নয়’ এমন শ্লোগানকে ধারণ করে মাঠে আরো সক্রিয় থাকতে দেখা যাচ্ছে সেনাবাহিনীকে। করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) এর প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে সরকার সরকারি ছুটি ঘোষণা করেছে। জরুরী প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের না হতে এবং নির্দিষ্ট কিছু সেবা প্রতিষ্ঠান ও দোকান-পাট ব্যতীত সকল ধরনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখতে নির্দেশনা দিয়েছে।

প্রথম কয়েকদিন নির্দেশনা মানা হলেও গেল কয়েকদিন আবার এর ব্যাত্যয় ঘটতে শুরু করেছে। আর এ কারণেই মাঠে নড়েচড়ে সক্রিয় হয়েছে সেনাবাহিনী। তারা মানুষকে যেকোনো মূল্যে বাইরে না থেকে ঘরে ঢোকানোর কর্মসূচী নিয়ে মাঠে নেমেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার (০২মার্চ) সেই চিত্র দেখা গেছে ফেনীতে।

ফেনী শহরের ট্রাংক রোড, দোয়েল চত্ত্বর, খেঁজুর চত্ত্বর ও বড় বাজারে জেলা প্রশাসেনের ম্যাজিষ্ট্রেটসহ অভিযান পরিচালনা করে সেনাবাহিনী। এসময় সেনাবাহিনী পথচারীদের ঘরে ফেরার জন্য অনুরোধ করেন।

এবং ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোকে বন্ধ করে রাখার জন্য আহ্বান করেন। আইন অমান্য করে দোকান খোলা রাখায় এসময় ভ্রাম্যমান আদালত এক দোকানদারকে ২’শ টাকা জরিমানা করেন। সেনাবাহিনীর কার্যক্রম প্রসঙ্গে ২৮ মিডিয়াম রেজিমেন্ট আর্টিলারির মেজর নাইম রেজওয়ান বলেন, শুরু থেকে ফেনীতে সেনাবাহিনীর একটি পেট্রোল কাজ করে আসছে। আজ সেখানে কাজ করছে তিনটি পেট্রোল মাঠে রয়েছে। আমরা চাইবো যেকোনো মূল্যে মানুষকে ঘরে ফেরাতে।

আমরা প্রথমে মানুষকে অনুরোধ করবো। অনুরোধ না শুনলে কঠোরতা আরোপ করবো। আমাদের সাথে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট এবং পুলিশও থাকবে। সাধারণ জনগন আইন অমান্য করলে প্রয়োজনে জেল জরিমানাও করা হবে। তিনি আরো বলেন, সরকার ঘোষিত ২৬ মার্চ হতে ১১ এপ্রিল পর্যন্ত সাধারণ ছুটিতে হোমকোয়ারান্টিন এবং সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখার জন্য আমরা সেনা টহল পরিচালরনা করেছি।

এ সিদ্ধান্ত মানতে জনগণকে উদ্বুদ্ধ করছি, সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করছি। পাশাপাশি হতদরিদ্র মানুষ, খেটে খাওয়া মানুষকে মাস্ক বিতরণ করেছি, হাত ধোয়ার জন্য সাবান দিয়েছি। একইসাথে রাস্তায় জীবণুনাশক তরল ছিটিয়েছি, যানবাহনে জীবাণুনাশক ছিটিয়েছি। মেজর নাইম রেজওয়ান বলেন, আমাদের মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে মানুষকে হোম কোয়ারান্টিনে থাকা, সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখা এবং মানুষকে সতর্কভাবে চলতে উদ্বুদ্ধ করা। তিনি বলেন, সরকারের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে আমরা কঠোরভাবে কাজ করবো।

আমরা, জেলা প্রশাসন ও আইনশৃংখলা বাহিনী একত্রিত হয়ে কাজ করছি। মেজর নাইম রেজওয়ান বলেন, ফেনী সদরসহ জেলার বাকি পাঁচটি উপজেলাতেও টহল জোরদার করবে সেনাবাহিনী।

শহর থেকে গ্রামীন জনপদেও জনসচেতনতায় কাজ করবে সেনাবাহিনী। উল্লেখ্য সেনাবাহিনীর টহল জনসমাগম কঠোরভাবে নিরুৎসাহিত করছে। সবাইকে নিতান্ত প্রয়োজন ব্যতীত বাসায় থাকার জন্য সেনাবাহিনী অনুরোধ জানাচ্ছে। বাজার ও জরুরী সেবামূলক এলাকায় সামাজিক দুরত্ব নিশ্চিত করতে বলা হচ্ছে।