বিনোদন

প্রাথমিক তদন্তে শিমুর হত্যাকারী তার স্বামী: পুলিশ

অভিনেত্রী শিমুকে হত্যা করেছে তার স্বামী: পুলিশ। চলচ্চিত্র অভিনেত্রী রাইমা ইসলাম শিমুকে হত্যা করার কথা প্রাথমিকভাবে তার স্বামী খন্দকার শাখাওয়াত আলীম নোবেল স্বীকার করেছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ। পুলিশ বলছে, দাম্পত্য কলহের জেরে এ হত্যাকাণ্ড ঘটেছে।

মঙ্গলবার (১৮ জানুয়ারি) জেলা পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার মো মারুফ হোসেন সরদার। এবং অভিনেত্রী শিমুর লাশ গুম করতে তার স্বামীকে বন্ধু ফরহাদ সহায়তা করেছেন।

সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ আরও জানায়, যে গাড়ি ব্যবহার করে শিমুর লাশ গুমের চেষ্টা করা হয়েছে সে গাড়ি জব্দ করে থানায় নিয়েছে পুলিশ। গত রবিবার সকাল সাতটা থেকে আটটার মধ্যে যেকোনো সময় শিমুকে হত্যা করা হয়। অন্যান্য আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে কেরানীগঞ্জ মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) কাজী রমজানুল হক বলেন, লাশটি টুকরা করে দুটি বস্তায় ভরে ফেলে রাখা হয়েছিল। নিহত শিমুর গলায় একটি দাগ রয়েছে। স্থানীয় লোকজনের মাধ্যমে খবর পেয়ে খণ্ডিত অংশগুলো উদ্ধার করেছে পুলিশ। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

শিমু নিখোঁজ হওয়ার বিষয়ে রাজধানীর কলাবাগান থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) হয়েছিল। এ ঘটনায় কেরানীগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করার প্রস্তুতি চলছে।

গতকাল সোমবার (১৭জানুয়ারী) চলচ্চিত্র অভিনেত্রী রাইমা ইসলাম শিমুর লাশ দুপুরে, ঢাকার কেরানীগঞ্জের হজরতপুর ব্রিজের কাছে আলিয়াপুর এলাকায় রাস্তার পাশ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। লাশটি বস্তায় ভরে ফেলে রাখা হয়েছিল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *