ঝুঁকির চট্টগ্রামে করোনাভাইরাস শনাক্তের উপায় নেই এখনও

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ মোকাবিলায় চট্টগ্রামে বিদেশফেরতদের বাধ্যতামূলক ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইনে (রোগ সংক্রমণের আশঙ্কায় পৃথক রাখা) থাকতে হবে। কোয়ারেন্টাইনের জন্য নগরীর রেলওয়ে বক্ষব্যাধি হাসপাতালকে নির্ধারণ করা হয়েছে। আর আইসোলেশনের (সংক্রামক রোগীদের জন্য পৃথক ব্যবস্থা) জন্য নির্ধারণ করা হয়েছে জেনারেল হাসপাতাল ও সীতাকুণ্ডের ফৌজদারহাটে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিস (বিআইটিআইডি)। তবে রেলওয়ে হাসপাতালের কোয়ারেন্টাইনে থাকা রোগীর সংখ্যা বেশি হয়ে গেলে জেনারেল হাসপাতালেও রাখার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। যদি বিদেশফেরতদের কেউ এ নির্দেশনা না মানে তাহলে হতে পারে ছয় মাসের কারাদণ্ড এবং এক লাখ টাকা জরিমানা। চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক মো. ইলিয়াস হোসেন ও সিভিল সার্জন সেখ ফজলে রাব্বি এ বিষয়ে নিশ্চিত করেছেন। এদিকে চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন নিশ্চিত করেছেন, করোনাভাইরাস শনাক্ত করার কোনো কিট বন্দরনগরীতে এখনও নেই।

চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক মো. ইলিয়াস হোসেন বলেন, ‘বিদেশফেরত সকলকে বাধ্যতামূলকভাবে ১৪ দিনের জন্য কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। তাদেরকে প্রথমে রেলওয়ে হাসপাতালে রাখা হবে। যদি এ ভাইরাসের রোগী শনাক্ত হয় তাহলে পরবর্তীতে সেভাবেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের সাহসের খুব অভাব। ডাক্তার থেকে শুরু করে সব জায়গায় সমস্যা। তারপরও আমরা আমাদের প্রস্তুতি রেখেছি। এক্ষেত্রে কোয়ারেন্টাইনে থাকা রোগীর সংখ্যা বেশি হলে তখন নগরীর আন্দরকিল্লায় চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে রাখা হবে। আর আইসোলেশনের ক্ষেত্রে জেনারেল হাসপাতাল ও বিআইটিআইডিকে নির্ধারণ করা হয়েছে। সব উপজেলার প্রশাসন, ইউএনও, চেয়ারম্যানকে মনিটরিং করার জন্য জানানো হয়েছে। একইভাবে সকলের সাথে যোগাযোগ করা হচ্ছে। চেষ্টা করছি এ পরিস্থিতি মোকাবিলা করার জন্য। এক্ষেত্রে সকলকে সহযোগিতা করতে হবে। কোনো কিছুই একার পক্ষে সম্ভব নয়।’

জানা যায়, কোয়ারেন্টাইনের জন্য আবাসিক হোটেল নির্ধারণের চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছে জেলা প্রশাসন ও সিভিল সার্জন কর্তৃপক্ষ। কোয়ারেন্টাইনের জন্য প্রাথমিকভাবে নির্ধারণ করেও মোটেল সৈকত কর্তৃপক্ষের আপত্তির কারণে সেটিকে চূড়ান্ত করা যায়নি। এই অবস্থায় অন্য কোনো হোটেলও চূড়ান্ত করা সম্ভব হয়নি তাই রেলওয়ে হাসপাতালকে কোয়ারেন্টাইনের জন্য নির্ধারণ করা হয়েছে।

এদিকে রোগীদের চিকিৎসায় নিয়োজিত চিকিৎসকদের নিরাপত্তার প্রয়োজনীয় উপকরণের অভাবে বিকল্প সরঞ্জাম ব্যবহারের প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে স্বাস্থ্য বিভাগ। তবে এর মধ্যেও চট্টগ্রাম জেলা সর্বোচ্চ ঝুঁকির মধ্যে। কারণ এখানে বিমানবন্দর ও সমুদ্রবন্দর আছে।

এ বিষয়ে চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি বলেন, ‘আমাদের প্রথম কাজ এন্ট্রি পয়েন্টে আক্রান্ত কেউ থাকলে চিহ্নিত করতে পারা। শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে একটি থার্মাল স্ক্যানার থাকলেও বন্দরে এখনও হ্যান্ড হেল্ড ইনফ্রারেড থার্মোমিটার দিয়ে শরীরের তাপমাত্রা পরিমাপ করা হচ্ছে। তবে দুটোই সমান উপযোগী।’

সিভিল সার্জন বলেন, এ পর্যন্ত হোম কোয়ারেন্টাইনে ২৯ জন রয়েছেন তবে এরপর থেকে বিদেশফেরত সকলকে ১৪ দিনের জন্য বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘করোনাভাইরাস শনাক্ত করার কোনো কিট বন্দরনগরীতে এখনও নেই। যা নীতিগত সিদ্ধান্তের কারণে এখনও আসেনি। সিদ্ধান্ত যদি হয় কিট ঢাকার বাইরে যাবে। তাহলে চট্টগ্রাম বিআইটিআইডি এবং কক্সবাজারের বিষয়টি আলোচনায় আছে। এখানে আগে আসবে। সংক্রমণ বাড়তে থাকলে অবশ্যই কিট ঢাকার বাইরে আসবে।’

এদিকে করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগীর সেবায় ডাক্তারেরা কেমন প্রস্তুতি নেবে সে প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘নরমালি হাসপাতালের আউটডোরে রোগী দেখার সময় ডাক্তারেরা শুধু গ্লাভস ও মাস্ক পরলেই হবে। তবে আক্রান্ত রোগীর সংস্পর্শে যেতেই ওই পোশাক (সুরক্ষা এপ্রোন) পড়তে হবে। আউটডোরে রোগী দেখতে ওরকম পোশাক পরার প্রয়োজন নেই। মাস্ক ব্যবহার করতে হবে যদি কারও কাছে মাস্ক না থাকে তিন লেয়ারের কাপড় দিয়ে মাস্ক তৈরি করে ব্যবহার করতে পারবে।’

করোনা মোকাবিলায় প্রস্তুতি যেমন: জেনারেল হাসপাতালে মোট ১০০টি বেড প্রস্তুত রাখা হয়েছে। সীতাকুণ্ডের বিআইটিআইডিতে আইসোলেশনের জন্য ৫০টি, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের ২৯ নম্বর ওয়ার্ডে ৩০টি, রেলওয়ে হাসপাতালে ৩৭টি, চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ হাসপাতাল এবং সিটি করপোরেশন পরিচালিত কয়েকটি হাসপাতালসহ নগরীতে মোট ৩৫০টি বেড প্রস্তুত রাখা হয়েছে। নগরীর বাইরে উপজেলাগুলোর মধ্যে রাউজানে ৩০টি এবং হাটহাজারী, ফটিকছড়ি, আনোয়ারা, সীতাকুণ্ড ও বোয়ালখালী উপজেলায় ১০টি করে বেড এবং পাশাপাশি জেলার ১৪টি উপজেলার মধ্যে বাকি আটটিতে পাঁচটি করে বেড প্রস্তুত রাখা হয়েছে।source:ctgpratidin