অন্যান্য

গরুর গোশত বিতর্কে অভিনেত্রীকে ধর্ষণ ও হত্যার হুমকি

বাংলাদেশে রান্নার একটি অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত হয়েছিলেন কলকাতার সঞ্চালক-অভিনেত্রী সুদীপা চ্যাটার্জি। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের অভিনেত্রী তারিন জাহানের পাশে দাঁড়িয়ে গরুর মাংস রান্না করতে দেখেন সুদীপা। এরপর হিন্দু ধর্মের অনুসারীদের রোষানলে পড়েন তিনি। এমনকি সোশ্যাল মিডিয়ায় ধর্ষণ ও খুনের হুমকি পাচ্ছেন। ভয়ে নিজের ছেলেকে স্কুলেও পাঠাতে পারছেন না।

বর্তমান পরিস্থিতি ব্যাখ্যা করে ভারতীয় গণমাধ্যম টিভি নাইনকে সুদীপা বলেন, ‘ভালো থাকার চেষ্টা করছি। এতদিন হয়ে গেল আজও আমার ছেলেটাকে স্কুলে পাঠাতে পারিনি। কিছুদিন পর হয়তো পাঠাতে পারব। পুলিশ খুব সাহায্য করছে। ওরা জানিয়েছে, নিরাপত্তা দেওয়ার চেষ্টা করবে।’

এর আগে নেটিজেনদের রোষানলে পড়ে ফেসবুক লাইভে এসে ক্ষমা চান সুদীপা। তার ভাষায়, আমি ক্ষমাপ্রার্থী আবেগে আঘাত দেওয়ার জন্য। আগামী দিনে মাথায় রেখে চলব। আমার না সত্যি মাথায় আসেনি এটা হতে পারে।

এরপর হিন্দুস্তান টাইমসকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে সুদীপা চ্যাটার্জি নিজের অবস্থান পরিষ্কার করেন। তিনি বলেন, অনেক মানুষ বিতর্ক জন্ম দিতে ভালোবাসেন। এর আগেও এটা দেখেছি। তবে তারা কেউই সত্যিটাকে জানতে চান না। কেউই দেখেননি নিজের চোখে। যতজন এই নিয়ে বিদ্বেষমূলক পোস্ট করেছেন, তারা জানেনই না পুরো ব্যাপারটা। আমি না গরুর মাংস খেয়েছি, না গরুর মাংস রান্না করেছি।

এদিকে এর তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছিলেন সুদীপার স্বামী অগ্নিদেব চট্টোপাধ্যায়। কেউ কেউ এক্ষেত্রে সুদীপার প্রয়াত মাকে পর্যন্ত আক্রমণ করতে ছাড়েননি।

ঠিক কোথায় ভুল হয়েছে তা জানাতে গিয়ে সুদীপা বলেছিলেন, তারিন জাহান অনুষ্ঠানটি শুরু করতে গিয়ে ভুলবশত বলে ফেলেন, যেটা হয় না ক্যাজুয়ালি বলে ফেলা, যে সুদীপা আজকে তোমায় আমি গোরুর মাংস রান্না করে খাওয়াবো। অ্যাকচুয়ালি তারিন আর আমি বন্ধু। খুব সুন্দর আড্ডা দিচ্ছিলাম, বন্ধু হয়ে গিয়েছিলাম। তখন ও একজন বন্ধুকে ওয়েলকাম করতে গিয়ে কথাটা বলে ফেলেছে, কিন্তু বলেই ও সঙ্গে সঙ্গে কারেক্ট করে বলেছে, আমি আজকে আপনাদের সবার জন্য গোরুর মাংসের কোফতা রান্না করবো।

সুদীপার দাবি, এটা হয়তো কোনোভাবে এডিটরের ভুল হবে, এইরকম ভুল আমরা প্রায়ই বলি। যে কেউ অ্যাঙ্কররা বলে, পরে সেটা এডিটে বাদ দিয়ে দেওয়া হয়। এটা তারিন জাহান ইচ্ছাকৃতভাবে করেছেন তা কিন্তু আমি মনে করি না অন্তত। কেউ এটা করে না। আর আমি তো সেখানে চুপ করে দাঁড়িয়েছিলাম। কারণ, আমি জানি, এই অংশটা বাদ যাবে এডিটে। সেটা কোনো কারণে বাই মিসটেক হয়নি। তার দায় তো আমার ওপর বর্তায় না।

এদিকে সুদীপাকে নিয়ে উদ্বিগ্ন তারিন। ভারতীয় গণমাধ্যম আনন্দবাজারকে এই অভিনেত্রী বলেন, কোন পর্বে কী পদ রান্না হবে তার, চিত্রনাট্য আগে থেকেই ঠিক করা হয়ে যায়। এই রান্নার অনুষ্ঠানকে ঘিরে যত বিতর্ক। আর আমি এই বিতর্কে না চাইতেও জড়িয়ে পড়লাম। ঈদের সময় দর্শকের কথা মাথায় রেখে গরুর মাংসের একটি পদ চূড়ান্ত করা হয়েছিল। সে অনুযায়ী আমরা দর্শকদের জন্য ওই রান্না দেখিয়েছিলাম। আমি কিন্তু ওই অনুষ্ঠানে সুদীপাদিকে গরুর মাংস খেতে বলেছি বা আমি গরুর মাংস খাওয়াব বলেছি, এমন নয়। আমরা খাওয়া তো দূর, ছুঁয়েও দেখিনি। ওই অনুষ্ঠানের ভিডিও যে কেউ দেখতে পারেন।