পরশুরাম

করোনা থেকে হলনা শেষ রক্ষা পরশুরামের মির্জানগর ইউনিয়নে সর্বোচ্চ সতর্কতার পরেও

করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের শুরুতে সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করেও শেষ রক্ষা হয়নি। অবশেষে করোনা ঢুকেই গেছে পরশুরাম মির্জানগর ইউনিয়নের সুবার বাজার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একজন কর্মী করোনা প্রজেটিভ।

সরকারের নির্দেশনা মোতাবেক উপজেলা প্রশাসনের সাথে সমন্বয় করে মির্জানগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো: নুরুজ্জামান ভুট্টুোর নেতৃত্বে মির্জানগর ইউনিয়নের গ্রাম পুলিশের সদস্যরা দিনরাত পরিশ্রম করে মির্জানগর তথা সুবার বাজারকে সুরক্ষিত রেখেছিল।

চেয়ারম্যান, ইউপি সদস্যরা ও গ্রাম পুলিশের সদস্যরা অবিরাম ছুটে চলে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করাসহ শতভাগ লকডাউন সহ সরকারের স্বাস্থ্য বিধিসহ সব নির্দেশনা মাঠপর্যায়ে বাস্তবায়ন করে এতদিন সুরক্ষিত রেখেছিল।

ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মী আক্রান্ত হওয়াতে এবার বাড়তি সতর্কতা নিতে হবে বলে জানান মির্জানগর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান নুরুজ্জামান ভুট্টু।

তিনি জানান সুবার বাজার উপস্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মরত সেবিকা চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের সিনিয়র নার্স দীর্ঘদিন ধরে সুবার বাজার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। সারা বাংলাদেশের যখন সবাই করোনা আতঙ্কিত ছিলেন। তখনো তিনি সুবার বাজার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মানুষকে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। গতমাসে সুবার বাজার হাসপাতালে ৩২ টি নরমাল ডেলিভারি করেন। গত ৩০ তারিখ নমুনা সংগ্রহ করা হয়। রিপোর্ট আসার পর জানা যায় তিনি করোনায় আক্রান্ত। তিনি সবার কাছে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত সেবিকা রহিমা আক্তারের সুস্থতার জন্য সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন। উনি যেন আবার সুস্থ হয়ে মানুষের সেবা করতে পারেন।

তিনি আরো জানান জরুরী বিজ্ঞপ্তিতির মাধ্যমে মির্জানগর ইউনিয়নের সর্বসাধারণের অবগতির জন্য সুবার বাজার উপ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত সেবিকা রহিমা আক্তার করোণা পজিটিভ আসায়। পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত সুবার বাজার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কেউ যাতে না যায়। জরুরী প্রয়োজনে সেবা নিতে সবাই যেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স যায়। তা এক জরুরী বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এলাকাবাসীকে জানিয়েছেন বলে জানান চেয়ারম্যান নুরুজ্জামান ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.