করোনার প্রভাবে আর্থিক ক্ষতির মুখে দাগনভূঞার সিয়াম পোল্ট্রি ফার্ম

সিয়াম পোল্ট্রি ফার্ম। আব্দুল কাদের কাউছারের পরিচালনায় দাগনভুঞা উপজেলার ৪নং রামনগর ইউনিয়নের সেকান্দরপুর গ্রামে অবস্থিত।এতে ব্রয়লার সাদা মোরগ ও কক মোরগ পালন করা হয়। ৪ জন শ্রমিক ও চারটি ঘরের মাধ্যমে শবে বরাত কে কেন্দ্র করে সাদা মোরগ ৫,০০০ টি এবং রমজান কে কেন্দ্র করে কক ১২,০০০ টি মোরগ পালন শুরু করা হয়েছে।

কিন্তু এরমধ্যেই করোনা ভাইরাসের কারনে মোরগ বিক্রি বন্ধ হয়ে যায়। রাস্তায় গাড়ী না থাকায় এবং পোল্ট্রি মোরগে করোনা ভাইরাস আছে এমন গুজবে মানুষ মোরগ কেনা বন্ধ করে দেয়। এছাড়াও হোটেল রেস্তোরা বন্ধ হওয়ায় মোরগের চাহিদা ব্যাপক হারে কমে যায়।

এমতাবস্থায় সিয়াম পোল্ট্রি ফার্মের পরিচালক আব্দুল কাদের কাউছার জানান, ৫,০০০ সাদা মোরগ শবে বরাতকে কেন্দ্র করে পালন শুরু করি, কিন্তু করোনা ভাইরাসের প্রভাবে রাস্তায় গাড়ী না থাকায় এবং মোরগের চাহিদা না থাকায় আমরা মোরগগুলো বিক্রি করতে পারিনি। এতে করে প্রতিদিনই আমাদের শ্রমিক খরচ, মোরগের খাবার, ঔষধ সহ অনেক টাকা খরচ হচ্ছে এবং বড় ধরনের আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছি। খামার মালিক কাউছার আরো জানান, তিনি রমজানকে উদ্দেশ্য করে ১২,০০০ টি কক মোরগ পালন শুরু করেন, কিন্তু এখন মহামারীর কারনে কক মোরগগুলোও বিক্রি হচ্ছেনা।

এমতাবস্থায় বিশাল লোকসান হচ্ছে বলে জানান কাউছার। তিনি আরো বলেন, সাদা মোরগ ছিল পাইকারি ১১০/১১৫ টাকা, এখন তা কমে ৭৮/৮০ টাকা হওয়ায় পোল্ট্রি ব্যবসায়ীগন দিশেহারা হয়ে যাচ্ছে। পাইকারি ৭৮/৮০ টাকা হওয়ার পরেও মোরগের চাহিদা নেই বলে জানান তিনি। এমতাবস্থায় তিনি সাদা ৫,০০০ এবং কক ১২,০০০ টি মোরগে বড় ধরনের আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন।

এসময় কাউছার বলেন, আমরা যারা লোন নিয়ে ব্যবসা করছি, আমাদের এই লোকসানের কারনে পরবর্তীতে আবার নতুন করে শুরু করার মত আমাদের কোন টাকা নেই। তাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী পোল্ট্রি ব্যবসায়ীদের জন্য যে প্রণোদনা ঘোষনা করেছেন, তা যেন পোল্ট্রি ব্যবসায়ীরা পায় সেই আশা করেন এবং পোল্ট্রি ব্যবসায়ীদের কম সুদে লোনের ব্যবস্থা করার আহবান করেন। জানতে চাইলে উপজেলা পশুসম্পদ অফিসার ডাঃ মোঃ মাইনুল ইসলাম চৌধুরী জানান, যে সকল পোল্ট্রি খামারীগন আর্থিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে আমরা তাদের তালিকা তৈরী করছি।