সাতকানিয়ায় পাঁচ তলা থেকে নিজের সন্তানকে ফেলে দিলেন পিতা!

নিজের কন্যা সন্তানকে ভবনের পঞ্চম তলার ছাদ থেকে নিচে ফেলে দিলেন পাষণ্ড এক পিতা! এতো উঁচু থেকে নিচে পড়েও অলৌকিকভাবে বেঁচে গেলেন শিশুটি। তবে শিশুটি শারীরিক আ ঘাত প্রাপ্ত হয়েছেন।

প্রাণে বেচেঁ যাওয়া  শিশুটির নাম রাইচা (৩)। বর্তমানে শিশু রাইচা মুমূর্ষু অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিকেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন তার এক পায়ের হাড় ভেঙ্গে গেছে। এ ছাড়া মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে আ ঘা,ত পেয়েছে।

গত ১৯ এপ্রিল রোববার সন্ধ্যায় উপজেলার মাদার্শা ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড পশ্চিম মাদার্শা মাঝের পাড়া এলাকায় ঘটনাটি ঘটে। ঘটনার পরই স্থানীয় জনতা ওই পিতাকে আ টক করে পুলিশে সো পর্দ করেছে। রাইচার পিতা মানসিক ভারসা ম্যহীন বলে জানা গেছে। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ঘটনার দিন সন্ধ্যার দিকে এলাকার মৃ, ত বাঁচা মিয়ার মানসিক ভারসা ম্যহীন ছেলে কুতুব উদ্দীন (৩৫) তার তিন বছর বয়সী শিশু কন্যা রাইচা কে নিয়ে বাড়ির পার্শ্ববর্তী ৬নং ওয়ার্ড ইয়াজর পাড়া ভাগিনা আনোয়ার হোসেনের বাড়িতে বেড়াতে যান।

এ সময় পিতা ও শিশুটিকে আপ্যায়ন স্বরূপ শরবত ও অন্যান্য নাস্তা খেতে দেয়া হয়। পিতা কুতুব শরবতসহ অন্যান্য নাস্তা খেলেও শিশুটি শরবত খেতে অনীহা প্রকাশ করে। শিশু রাইচা শরবত খেতে অনীহা প্রকাশ করায় মানসিক ভারসাম্যহীন তার উপর পিতা ক্ষিপ্ত হন। এ পর্যায়ে সবার অগোচরে রাইচাকে নিয়ে ভবনের পঞ্চম তলার ছাদে উঠে নীচে ছুড়ে ফেলে দেন।

এ ব্যাপারে মাদার্শা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আ.ন.ম সেলিম চৌধুরী বলেন, কুতুব তার শিশুটিকে নিয়ে পঞ্চম তলার ছাদে উঠে সিঁড়ির দরজা বন্ধ করে দিলে ভাগিনা আনোয়ার ও আরও লোকজন দরজা খুলতে বললেও ভেতর থেকে সাঁড়া পাওয়া যায়নি। পরে
শিশুটিকে ছাদ থেকে নীচে ফেলে দিলেও শিশুটি প্রাণে বেঁচে যায়।

স্থানীয়রা শিশুটিকে মুমূ র্ষু অবস্থায় উ দ্ধার করে প্রথমে সাতকানিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরে চট্টগ্রাম মেডিকেল হাসপাতালে নিয়ে যান। তিনি আরো বলেন, কুতুব এক সময় সৌদি প্রবাসী ছিলেন। মানসিক সমস্যা কারনে বিগত ৪ বছর আগে তাকে দেশে পাঠিয়ে দেয়া হয়। কিছু দিন পর পর তার এ ধরনের মানসিক ভারসাম্যহীনতা দেখা দেয়। ধারনা করা হচ্ছে ঘটনার দিনও কুতুব ভারসাম্য হারিয়ে এ কান্ডটা ঘটিয়েছেন।

সাতকানিয়া থানার উপ-পরিদর্শক নজরুল ইসলাম বলেন, শিশুটিকে নীচে ছুড়ে ফেলে দিলেও সরাসরি মাটিতে না পড়ে প্রথমে একটি কামরাঙ্গা গাছে ডালে এরপর ডিস লাইনের তারে আটকে পরে মাটিতে পড়ে। এ ঘটনায় জনতা কর্তৃক আট ককৃত কুতুব উদ্দীনকে গ্রে, প্তার করে ৫৪ ধারায় সোমবার সকালে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, কুতুব মানসিক ভারসাম্যহীন বলে তার পরিবারের পক্ষ থেকে দাবী করলেও আমরা বিষয়টি চিকিৎসকের মাধ্যমে যাচাই করব। প্রকৃত মানসিক ভারসাম্যহীন ব্যক্তির বিরুদ্ধে কিছুই করার নেই। তার বিপরীতে যদি স্বজ্ঞানে এমন পাষন্ড কাজ করে থাকে এবং তা’ প্রমাণিত হয় তাহলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।