ফেনীতে চলাচল সীমিত করতে কঠোর হচ্ছে সেনাবাহিনী

করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকির এড়ানোর লক্ষ্যে সরকারি ভাবে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার কথা থাকলেও ফেনীতে তা মানা হচ্ছে না। প্রতিদিন সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত শহরের প্রধান সড়ক ও বাজারগুলোতে মানুষের ভীড় দেখা যায়।

সরেজমিনে দেখা গেছে, জেলা সদর সহ উপজেলা পর্যায়েও একই চিত্র। ভ্যন্তরিন সড়কে চলাচলকারী সিএনজি চালিত অটোরিকশায় চালকসহ ছয়জন এবং ব্যাটারি চালিত অটোরিকশায় সাত-আটজন যাত্রী নিয়ে ঠাসাঠাসি করে বসে চলাচল করতে যেতে দেখা গেছে।

সরকার গত ২৬ মার্চ থেকে ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। করোনাভাইরাসে ছড়িয়ে পড়া রোধে বন্ধের সময়ে সবাইকে বাড়িতে রাখতে এবং সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে সরকারের এই পদক্ষেপ। এ সময়ে জনসমাগম তো দূরে কথা, বিনা প্রয়োজনে বাড়ির বাইরেও যাতে মানুষ বের না হয় এবং সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করার লক্ষ্যে সেনাবাহিনীসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা মাঠে কাজ করছেন। এর মধ্যে চলছে প্রশাসন ও পুলিশের সমন্বিত সচেতনতা কার্যক্রম ও অভিযান।
এদিকে উদ্বুত পরিস্থিতিতে ফেনীতে জরুরী প্রয়োজন চলাচল নিয়ন্ত্রণ করতে কঠোর অবস্থানে যাচ্ছে সেনাবাহিনী।

জানতে চাইলে ফেনীতে দায়িত্বপ্রাপ্ত কুমিল্লা সেনানিবাস ২৮ মিডিয়াম রেজিমেন্ট আর্টিলারি অধিনায়ক লে. কর্ণেল আসিফ আজমিন বলেন, ইতিমধ্যে সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে জেলা সদরসহ প্রত্যন্ত অঞ্চলে মাইকিং, লিফলেট বিতরণ সহ সবধরনের সচেতনতামূলক প্রচারণা চালানো হয়েছে। সবাইকে করোনা প্রতিরোধে সর্তক হওয়াসহ সামাকিজ দূরত্ব বজায় রাখাতে বাসায় অবস্থান করতে আহবান করা হয়েছে।

আসিফ আজমিন আরো বলেন, সবার নিরাপত্তার স্বার্থে কোন ধরনের জরুরী প্রয়োজন ছাড়া কেউ ঘরের বাইরে যাতে না বের হয় সে ব্যাপারে কঠোর অবস্থান গ্রহণ করা হচ্ছে। এক্ষেত্রে জেলার অভ্যন্তরীন রুটেও ছোটখাট গাড়ী বন্ধ করে দেয়া হবে। শুধুমাত্র হাসপাতাল কিংবা জরুরী প্রয়োজন দেখিয়ে রাস্তায় বের হতে পারবে। দোকানপাট বন্ধ রাখা ও বিনাকারনে আড্ডা ঠেকাতে মঙ্গলবার থেকে রাতেও সেনাবাহিনীর অভিযান চলবে বলে তিনি জানান।