নোয়াখালীতে নারী চিকিৎসককে বাসা থেকে বের করে দিলেন বাড়িওয়ালা

করোনা ভাইরাস সংক্রমিত হওয়ার আশংকায় এক নারী চিকিৎসককে বাসা থেকে বের করে দিলেন বাড়ির মালিক। ওই নারী চিকিৎসক সোনাইমুড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের গাইনী বিভাগের কর্মরত। অমানবিক এ ঘটনাটি ঘটেছে নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী উপজেলার শিমুলিয়া গ্রামে।

ভুক্তোভোগী ডাঃ আসমা আক্তার জানান, তিনি সোনাইমুড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের গাইনি বিভাগের চিকিৎসক । বর্তমান প্রেক্ষাপটে তারা সকলেই জীবনযুদ্ধে তথা করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে কাজ করে যাচ্ছেন এবং সরকার নির্দেশিত সকল নিয়ম কানুন মেনে সার্বক্ষণিক রোগীদের সেবা দিয়ে আসছেন। তিনি দীর্ঘ দিন ধরে সোনাইমুড়ী উপজেলার শিমুলিয়া গ্রামে রফিক মাস্টারের এলাকার মোহাম্মদ আলী বিল্ডিংয়ে তার খালাতো বোনের পরিবারের সাথে এক সাথে থাকেন। তার স্বামীর বাড়ি কুমিল্লায়।

কিন্তু হঠাৎ গত দু দিন আগে বাড়ীর মালিক মোহাম্মদ আলী তাঁকে ডেকে নিয়ে আর এ বিল্ডিংয়ে আসতে নিষেধ করেন। বাড়ীর মালিকের ধারনা তিনি বাইরে যাওয়া আসার কারণে তাদেরকে করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত করবে। বর্তমানে তিনি সোনাইমুড়ীতে একটি বেসরকারি হাসাপাতালে কোনভাবে দিন পার করছেন। কারণ যানবাহন বন্ধ থাকার কারণে কুমিল্লায় গিয়ে স্বামীর সাথে থাকারও সুযোগ নেই। ওই নারী চিকিৎসকের স্বামী জানান, তারা বিষয়টি জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী অফিসারও থানার ওসিকে অবহিত করেছেন। কিন্তু তারা কোনো কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি গত দু দিনেও।

এ বিষয়ে বাড়ীর মালিক মোহাম্মদ আলীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, তিনি নিজেকে নির্দোষ দাবি করেন বলেন আমি কোন অপরাধ করিনি। উক্ত নারী যে চিকিৎসক তিনি তা জানেন না। অপরিচিত লোক আসলে তার পরিচয় পত্র থানায় জমা দিত হয়।

স্থানীয় এলাকাবাসী জানান, ঘটনাটি একেবারে অমানবিক। বর্তমান এ সংকট মুহূর্তে চিকিৎসকগন আক্রান্ত মানুষের পাশে নিজের জীবন বাজি রেখে চিকিৎসা সেবা দিয়ে আসছেন। আর ঠিক সে মুহূর্তে এ রকম একজন বাড়ির মালিকের অমানবিক কাণ্ডে মেনে নেয়া যায় না। তারা উক্ত মালিকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান।