কক্সবাজারের পর্যটকরা ছড়বে ‘অ্যাকোয়াহোলিক ট্যুরিস্ট ক্যারাভ্যান’ ছাদখোলা দোতলা বাসে

একপাশে উঁচুনিচু পাহাড়। আরেক পাশে বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্রসৈকত। সেই অপরূপ সৌন্দর্য্যের মাঝ দিয়েই চলে গেছে ৮০ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়ক। এ সড়কজুড়েই যেনো এক অসাধারণ সুন্দরের হাতছানি।

কক্সবাজারে আসা পর্যটকদের বাড়তি সুবিধা দিতে এ সড়কে চালু হয়েছে ‘অ্যাকোয়াহোলিক ট্যুরিস্ট ক্যারাভ্যান’ নামে একটি ছাদখোলা দোতলা বাস। যা দেশের কোনো পর্যটক স্পটে প্রথম।

জানা গেছে, ১০ বন্ধুর উদ্যোগে চালু হয়েছে ছাদখোলা দোতলা বাসটি। বাসটিতে দোতলায় আসন সংখ্যা রয়েছে ৩৬টি এবং নিচে ১২টি। কলাতলী থেকে টেকনাফ ভ্রমণের ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে ২ হাজার টাকা। প্রতিদিন সকাল ৯টায় কক্সবাজার শহরের কলাতলী থেকে রেজুখালের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাবে ছোট একটি বাস। পরে রেজুখাল থেকে ছাড়বে ‘ক্যারাভ্যান’। এটি টেকনাফ জিরোলাইন ঘুরে আবার কক্সবাজারে ফিরবে সন্ধ্যায়।

অ্যাকোয়াহোলিক ট্যুরিস্ট ক্যারাভানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক তানবীর আহমেদ বলেন, ‘পর্যটনের প্রসারের জন্য বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এ ধরনের বাস সার্ভিস চালু আছে। পর্যটকদের কথা চিন্তা করেই বাসটি চালু করা হয়েছে। এ বাসের বিশেষত্ব হচ্ছে ছাদখোলা। পর্যটকেরা বিনোদনের মাধ্যমে ভ্রমণ করতে পারে। আর মেরিন ড্রাইভ হচ্ছে বিশ্বের দীর্ঘতম সৈকতে। এই সড়কটির দুই পাশের নান্দনিকতা উপভোগের পাশাপাশি পর্যটন শিল্পের প্রসারের জন্য মূলত এ উদ্যোগ।

সংশ্লিষ্টরা জানান, এ বাসে মেরিন ড্রাইভ ভ্রমণের পাশাপাশি থাকবে সকালের নাস্তা, দুপুরের খাবার, বিকেলের স্ন্যাক্স। এছাড়া বাসের ভেতরে রয়েছে লাইব্রেরি। এ লাইব্রেরিতে আছে ভ্রমণপিপাসুদের জন্য পর্যটন সংশ্লিষ্ট বই। এছাড়া রয়েছে দেশি-বিদেশি লেখকদের বই পড়ার সুযোগ। সেই সঙ্গে থাকছে ওয়াইফাই ও ওয়াশরুম সুবিধা।

উল্লেখ্য, বুধবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১১টায় নতুন বাসটির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন।